ভৌতিক গল্প – ছদ্দ্ববেশী প্রেত

নওগাঁ শহরের একটি রাস্তায় এই ঘটনাটি ঘটে । তখন রাতপ্রায় ২ টা বাজে । এই ঘটনাটির
শিকার একজন সিএনজি চালক । তার নাম
হাবিব । হাবিব তখন তার
সিএনজি নিয়ে বাসায় ফিরছিল । সে হঠাৎ
দেখলো দুইজন মধ্যবয়সী হুজুর ধরনের ব্যক্তি তাকে সিএনজি থামানোর জন্য অনুরোধ
করছে । তা দেখে সে থামল এবং একজন হুজুর
তার সাথে কথা বললো ।
হুজুরঃ ভাই আমরা খুব বিপদে পড়েছি ।
হাবিবঃ আপনাদের কি হয়েছে জানতে পারি ?
হুজুরঃ সামনে আমাদের এক বন্ধু একটি লাশ নিয়ে দাড়িয়ে আছে । ওই
লাশটাকে নিয়ে আমাদের সামনের
গ্রামে যেতে হবে । তুমি কি আমাদের
পৌঁছে দিতে পারবে?
হাবিব কিছুক্ষণ ভাবলো ।তার মাঝে উনাদের
জন্য দয়া হলো ।সে আবার কথা বললো । হাবিবঃ আমি আপনাদের পৌঁছে দিব ।
হুজুরঃ ধন্যবাদ তোমাকে ।
এটা বলে দুইজন সিএনজ়িতে উঠে পড়লো । কিছু
দূরে যেতেই হাবিব দেখলো আরেকজন
হুজুর লাশ নিয়ে দাড়িয়ে আছে ।লাশটি কাপড়
দিয়ে প্যাচানো । হাবিব উনার সামনে এসে সিএনজ়ি থামালো ।এরপর দুই হুজুর
নামলো এবং তিনহুজুর লাশটি নিয়ে উঠলো ।
তারপর
তারা হাবিবকে সিএনজ়ি চালাতে বললো । আর
একজন হুজুর ওর সাথে কথা বলতে থাকলো ।
হুজ়ুরঃ সামনের গ্রামে যেতে কতক্ষন লাগবে ? হাবিবঃ প্রায় ৪০ মিনিট ।
হুজুরঃ তুমি পেছনের দিকে চাইবে না । লাশের
অবস্থা বেশি ভালো না । দেখলে ভয় পাবে । হাবিবঃ আচ্ছা হুজুর । তারপর হাবিব সিএনজি চালাতে শুরু করলো ।
কিন্তু সে লাশ দেখার আকর্ষণ অনুভব
করলো কিন্তু সে সাহস পেলো না । এর ৫ থেকে ৬
মিনিট পর সে এক অদ্ভুত বাজে শব্দ
শুনতে পারলো ।এক অজানা ভয় তাকে গ্রাস
করলো । সে তার মনের ভয় দূর করার জন্য সামনের লুকিং গ্লাস দিয়ে পেছনের
দিকে চইলো ।
চেয়ে যা দেখতে পারলো যা সে কেনো,
আমরা কেউ কোনোদিন ভাবতে পারি না ।
সে দেখলো ওই তিন হুজুর
লাশটিকে ছিড়ে ছিড়ে শকুনের মত খাচ্ছে। কেউ কলিজা, তো কেউ বুকের রক্ত পান করছে।
তা দেখে সে চিৎকার দিয়ে অজ্ঞান হয়ে গেল।
যখন তার জ্ঞান
ফিরলো তখনসে হাসপাতালে ভর্তি। তার
সারা শরীরে ব্যান্ডেজ ।
তাকে সকালে রাস্তার পাশে একটি খাল থেকে উদ্ধার করা হয় । এখন সে সুস্থ আছে ।
কিন্তু ওইদিনের ঘটনার পর থেকে আজও
সে সন্ধ্যারপর আর সিএনজি নিয়ে বের হয় না ।