মুন অব ইজারাইল – হেনরী রাইডার হ্যাগার্ড; বই রিভিউ ও ডাউনলোড

বইঃ‬ মুন অব ইজারাইল
লেখকঃ‬ হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড
অনুবাদকঃ‬ বুলবুল সরওয়ার

মুন অব ইজারাইল রিভিউঃ‬

মুন অব ইজরাইল

মুন অব ইজরাইল

বিতাড়িত ইজরাইলদের আশ্রয় দিয়েছিলো মিশর। বিনিময়ে ব্যাবহার করে ক্রীতদাসের মতো। অত্যাচারের পরিমাণ সহ্যের সীমা পেরুলে রুখে দাঁড়ায় অতি সংখ্যালঘু ইজরাইল। তারা তাদের নবীর দ্বারা ফারাওকে দাবী জানায় তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে দেবার জন্য। কিন্তু ফারাও কোনোভাবেই রাজি হননা এত্তগুলা ক্রিতদাস হারাতে । এতে করে পুরো মিশরে নেমে আসে অভিশাপ… রক্তে লাল হয়ে যাচ্ছে মিশরের সুপেয় পানির উৎসগুলো।মহামারীতে আক্রান্ত মিশর পড়ে দূর্ভিক্ষের কবলে। মারা যাচ্ছে প্রত্যেক পরিবারের প্রথম সন্তান এমনকি মারা গেলো ফারাও এর সন্তান ও। আকাশে চাঁদ উঠেনা… সূর্যের দেখা মেলেনা… পাগলপ্রায় মিশর অবশেষে মুক্তি দেয় ইজরাইলদের!! কিন্তু উসার্টির জেদ আর ফারাও এর পূনশ্চ নির্বুদ্ধিতায় আবারও প্রবল আঘাতের অপেক্ষায় মিশর…. ঠেকানোর উপায় নাই কোনো।

অভিমতঃ ব্যাপারটা আশ্চর্য হলেও সত্যি… উপরে বর্নিত সেই ইজরাইলি নবী… স্বয়ং আমাদের নবী মুসা ‬(আ)!! আর এইখানে আছে সেই ঐতিহাসিক পরাজয়ের কথা কিভাবে তিনি নীলনদের পানিতে ডুবিয়ে মেরেছিলেন ফারাও কে।  আরও জানা যাবে পূর্ব কাহিনী ও প্রেক্ষাপট । জানতে পারবেন সেই মুন‬ ইব ইজরাইল বাইজরাইলি_চন্দ্রিমা‬ র গল্প…. যার ভেতর দিয়ে স্রষ্টা ও তাঁর নবী প্রতিফলিত করেছেন তাদের শক্তি। গুঁড়িয়ে দেন সুপ্রাচীন মিশরের দেবরাজ আমেন এর দম্ভ। পড়া শেষে মনে হয় বইটা অসমাপ্ত রয়ে গেছে!!

মুন অব ইজারাইল ডাউনলোড লিঙ্কঃ

লেখক পরিচিতিঃ

হেনরী রাইডার হ্যাগার্ড দশ ভাই বোনের মধ্যে ছিলেন অষ্টম। আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে ভালো কোন স্কুল-কলেজে পড়ার সৌভাগ্য হয়নি তাঁর। মাত্র ঊনিশ বছর বয়সে নেটাল সরকারের চাকরি নিয়ে চলে যান দক্ষিণ আফ্রিকায়। ছ’বছর ওখানে কাটিয়ে আবার ফিরে আসেন ইংল্যান্ডে। এরপর তিনি আইনশাস্ত্রে লেখাপড়া শুরু করেন, পাশাপাশি মনোনিবেশ করেন লেখালেখিতে। ফলে পৃথিবী পায় ইতিহাসের বিখ্যাত লেখকদের একজনকে। একের পর এক চমকপ্রদ কাহিনী তিনি উপহার দিতে থাকেন পাঠকদের জন্য। চাকরিসূত্রে আফ্রিকা মহাদেশ সম্পর্কে প্রচুড় জ্ঞান লাভ করেন হ্যাগার্ড, সেসব অভিজ্ঞতাই ছিল তাঁর বইগুলোর মূল উপজীব্য।

হ্যাগার্ডের বিখ্যাত বইগুলোর মধ্যে কিং সলোমন্‌স মাইনস্‌, শী, রিটার্ণ অভ শী, অ্যালান কোয়াটারমেইন এবং পিপল অভ দ্য মিস্ট অন্যতম। ভাইয়ের সঙ্গে বাজি ধরেছিলেন হ্যাগার্ড যে, ট্রেজার আইল্যান্ড এর চেয়ে রোমাঞ্চকর বই লেখার ক্ষমতা তাঁর আছে এবং কিং সলোমন্‌স মাইনস্‌ লিখে সত্যিই প্রমাণ করে দিয়েছিলেন সেটা। বইটি প্রকাশ পাবার পর রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তাঁর অন্যান্য উল্লেখযোগ্য বই এর মধ্যে আছে মন্টেজুমা’স্‌ ডটার, মর্নিং স্টার, পার্ল মেইডেন, দ্য ব্রেদরেন, অ্যালান এন্ড দ্য হোলি ফ্লাওয়ার ইত্যাদি।

নানা রকম পেশায় জড়িত ছিলেন হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড, রাজনীতির প্রতি তাঁর বিশেষ ঝোঁক ছিল। ১৯১২ সালে স্যর উপাধি পান। ১৯২৫ সালের ১৪ মে পরলোকগমন করেন।